অধিকার বঞ্চিত তরুণ-তরুণী

১৬ জানুয়ারি, ২০২১ ৪:১৪ অপরাহ্ণ
অধিকার বঞ্চিত তরুণ-তরুণী
নাজমুল ইসলাম :

আমাদের দেশের তরুণ তরুণীদের বেশির ভাগ ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যায় যে, তারা তাদের স্বাভাবিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। যখন তাদের খেলাধুলা করা, গল্পগুজব করা ও আড্ডা দেয়ার কথা। ঠিক সেই সময়টাতে তারা, সুযোগ পেলেই অশ্লীল ভিডিও দেখছে বা ওই ধরনের কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হচ্ছে।

দেশে সুষ্ঠু বিনোদন ও ক্লাব কালচারের ব্যবস্থা না থাকার কারনেও কিশোররা নেশা বা পর্ণগ্রাফির দিকে ঝুঁকে পড়ছে। এ দায় ভার কার কেউ কি বলতে পারবেন? নাকি আমাদের দেশের জনসংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে বলে এদের কোন প্রকার খোঁজ-খবর নেয়ার সুযোগ আমাদের হয়ে উঠে না। আমাদের খেলাধুলার জন্য পর্যাপ্ত মাঠ বা খেলার সুযোগ নেই, সুস্থ বিনোদন নেই, বাবা-মায়ের শাসন নেই, এ সব কিছুর মাঝে আমাদের কি করা দরকার কি করলে ভাল হয় এ কথা গুলো আমরা অনেকেই উঠতে বসতে ভুল করতে করতে হয়তবা শিখেছি জানছি। তবে যারা জানেন না তাদের জানাবে কে?

হ্যাঁ, আমরা জেনে অন্যকে জানানোর চেষ্টা করবো। তবে এতেই কি সমাধান মিলবে? তবুও দেখা যাক চেষ্টাতো করতেই হবে। এবিষয়ে আমাদের জন্য আরও গভীর আলোচনা করলে হয়তো ভাল হবে।

এ বিষয়ে কিছু করনীয় আপনাদের মাঝে তুলে ধরার চেষ্টা করছি মাত্র।

পারিবিারিক বন্ধন অটুট করতে হবে:
আমাদের পারিবারিক কাঠামোগুলোকে পুনঃগঠন করা প্রয়োজন। ক্রমেই পারিবারিক কাঠামোগুলো খণ্ডিত এবং বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে, পিতামাতার সঙ্গে সন্তানদের দূরত্ব তৈরি হচ্ছে। সন্তানদেরকে পিতা মাতারা কেবল প্রজেক্ট হিসেবে দেখছেন। যেমন- আমার সন্তান জিপিএ-৫ পাওয়া প্রজেক্ট, এ্যাওয়ার্ড পাওয়ার প্রজেক্ট, বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার প্রজেক্ট। এমন প্রজেক্টের থেকেও বেশি নজর দিতে হবে সন্তানকে তিনি কতোটুকো সময় দিচ্ছেন, সন্তান কোথায় যাচ্ছে, কি করছে, কার সাথে মিশছে, ইন্টারনেটে কি ব্রাউজ করছে ইত্যাদি। এক কথায় সন্তানের সঙ্গে পিতার মাতার সুসম্পর্ক না থাকলে সন্তান বিপথগামী হবে।

আমাদের প্রয়োজন সেক্স এডুকেশন:
দেশের বেশিভাগ কিশোর কিশোরীরা অন্ধকারের দিকে ধাবিত হওয়ার কারণ হতে পারে সেক্স এডুকেশনের অভাব। দেশে ঘটমান সেক্স কেন্দ্রিক যে মহামারী দেখা যাচ্ছে তাতে সেক্স এডুকেশন বিষয়ক জ্ঞান থাকলে হয়তো দুর্ঘটনা সংখ্যা কম হত। সেক্স বিষয়ক সঠিক জ্ঞান না থাকায় তারা বর্তমান সমাজের বেহাল ব্যবস্থার শিকার। অল্প বয়সী তরুণ-তরুণী, মাত্র ১৭ এবং ১৮ বছর বয়সে এ ভুল বেশি হয়ে থাকে। সেক্স এডুকেশনের অভাবে তাদের স্বাভাবিক বিকাশ হয়ে ওঠে না। সমাজ ব্যবস্থার প্রেক্ষাপটে আমরা যদি স্কুলে কলেজে বিজ্ঞানসম্মত সেক্স এডুকেশনের ব্যবস্থা করতে পারতাম তাহলে কিশোরীদের ভুল গুলো অনেক কম হত। যেটা তারা পর্ণ ভিডিওতে দেখে তা যে বাস্তব নয়, সেক্স এডুকেশন থাকলে তারা তা জানতে পারতো

লেখক-

নাজমুল ইসলাম

স্টাফ রিপোর্টার, বাণিজ্য প্রতিদিন।

শেয়ার