নীতির কঠোর প্রয়োগ চাই

০৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২:০৪ অপরাহ্ণ
নীতির কঠোর প্রয়োগ চাই

পুঁজিবাজার নিয়ে আমাদের যেমন আশা রয়েছে তেমনি রয়েছে শঙ্কাও। ১৯৯৬ সালের শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারির কথা আমরা সবাই জানি। তাই বাজার যখন উঠতে থাকে তখন আশঙ্কা এসে দানাবাঁধে মনের গহীনে। লাভের লোভে বহু মানুষ যেমন সব খুইয়েছে, তেমনি আবার কারসাজি করে অনেকে আবার টাকা-পয়সা হাতিয়ে নিয়ে বাজার থেকে বের হয়ে গেছে। ১৯৯৬ সালের মতিঝিল পাড়ার সড়ক বন্ধ করে কাগুজে শেয়ারের সেই রমরমা বাজারের দৃশ্য বোধ করি এখনো অনেকের মানসপটে জ্বলজ্বল করছে।

এর ফলে আমরা দেখেছি ঐসময় ৩ হাজার ৬শত ৪৯ পয়েন্ট উঠে যাওয়া সূচক আবার ৪ শত ৬২ পয়েন্টে নেমে এসেছে। কিন্তু বাজারের যারা নিয়মিত ট্রেডার এত হতাশার মধ্যেও তারা বাজার ছেড়ে যায়নি। এরমধ্যে বাজার সম্প্রসারিত হয়েছে। নতুন নতুন সুরম্য অট্টালিকা পেয়েছে এসইসি এবং ডিএসই। সিএসই ১৯৯৫ সালে গঠিত হলেও এখনো যেতে হবে বহুদূর।

ফিরে তাকাই ১৯৫২ সালের দিকে। যখন কলকাতা স্টক এক্সচেঞ্জে পাকিস্তানের সকল শেয়ার এবং সিকিউরিটিজ লেনদেন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। প্রাদেশিক শিল্প উপদেষ্টা পরিষদের তত্বাবধায়নে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে স্টক মার্কেট প্রতিষ্ঠার জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়। ১৯৫৩ সালের ১৩ মার্চ শেয়ার মার্কেট বিষয়ক এই কমিটির দ্বিতীয় মিটিংয়ে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ১৯৫৩ সালের ৭ জুলাই এক মিটিংয়ে ১০০ জন সদস্য স্টক এক্সচেঞ্জ শুরুর ব্যাপারে রাজি হয়। এ মিটিংয়ে মির্জা ইস্পাহানিকে আহবায়ক করে ৮ জনের একটি কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির কাজ ছিল মেমোরেন্ডাম অব আর্টিকেলস, রেজিস্ট্রেশনের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা।

১৯৫৪ সালের ২৮ এপ্রিল পূর্ব পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ এসোসিয়েশন লিমিটেড শুরু করার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়। ১৯৫৬ সালে নারায়ণগঞ্জে বাংলাদেশে প্রথম শেয়ার ট্রেডিং শুরু হয়। ১৯৫৮ সালে স্টক এক্সচেঞ্জ ঢাকার মতিঝিলে স্থানান্তর করা হয়। ১৯৫৯ সালে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের নিজস্ব ভবনে সকল কার্যক্রম স্থানান্তর করা হয়। এরপর ১৯৬২ সালের ২৩ জুন পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিতে রুপান্তর করা হয় এবং নাম পরিবর্তন করে ‘পূর্ব পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড’ রাখা হয়। ১৯৬৪ সালের ১৫ মে পুনরায় নাম পরিবর্তন করে ‘ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড’ করা হয়।
এই দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় দরকার ছিল একটা কঠিন, কঠোর এবং বিনিয়োগ বান্ধব প্রশাসন। বলাবাহুল্য অপারেশন যে মাথা থেকেই শুরু করতে হয় সেটা অনুধাবন করতে পেরেছে বর্তমান সরকার। তাই বিএসইসির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন প্রফেসর শিবলি রুবাইত-উল-ইসলাম। পুঁজিবাজারের নতুন এই প্রশাসনের দৃঢ়তায় ফল দিতে শুরু করেছে। গতকাল দৈনিক বাণিজ্য প্রতিদিনের প্রধান সংবাদ ছিল বেশ চমকপ্রদ। কাযকরি কঠোর সিদ্ধান্ত এবং তা বাস্তবায়নের কারনে মাত্র ছয়মাসে সূচক বেড়েছে ৮শত ৬ পয়েন্ট। লেনদেন বেড়েছে ৬শত কোটি টাকার বেশি। মাত্র ৬ মাসেই ১৪ টি আইপিও অনুমোদন পেয়েছে। অবশ্য বিভিন্ন কারনে ১৩ টি আইপিও আবেদন বাতিলও হয়েছে। সংবাদে সবচেয়ে আশার কথা ছিল পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রণ করতে বিএসইসি প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে। যাতে কেউ ইচ্ছে করলেই বাজার নিয়ে অপখেলা খেলতে না পারে।

বাজার আস্থাশীল করার পেছনে বড় যে ভূমিকা রয়েছে সেটি হলো ২ ও ৩০ শতাংশ ইস্যু। এককভাবে পরিচালককদের ২ শতাংশ শেয়ার এবং সম্মিলিতভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণের ব্যাপারে কঠোর হয়েছে বিএসইসি। নীতি মানা হলে নতুন বোর্ড গঠন করা হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে প্রশাসন। এতেই নড়েচড়ে বসেছে কোম্পানিগুলো। এই নীতি অব্যাহত থাকলে মালিকপক্ষ আর কারসাজির অনুসঙ্গ হবে না বলেই বিশ্বাস করি। এতে বিপুল সংখ্যক মানুষ আবার বাজারে ফিরে আসবে। আমাদের বিশ্বাস বর্তমান বিএসইসি প্রশাসন তাদের এই কঠোর অবস্থানে অটল থাকবে।

শেয়ার