বিশে বিষ, স্বাগত একুশ

০১ জানুয়ারি, ২০২১ ৩:৫৩ অপরাহ্ণ
বিশে বিষ, স্বাগত একুশ
রিফাত কান্তি সেন :

শত বছর পর পর পৃথিবীতে মহামারী হানা দেয়। গত কয়েক শতাব্দীতে তো আমরা তেমনটাই শুনেছিলাম। ২০২০ এসে নিজ চোখে দেখতে হলো মহামারীর নির্মমতা।

বছরের প্রথম দিকেই পৃথিবীর বুকে হানা দেয় মরণ ঘাতকে রূপান্তর হওয়া কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস। বহুরূপ বদলে লাখো মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়ে ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছে ভাইরাসটি।

শিল্পপতি, রাজনৈতিক নেতা, শিক্ষক,সাংবাদিক থেকে শুরু করে সমাজের উঁচু-নিচু কেউই বাদের খাতায় নেই। অনেক চেনা মুখ হারিয়ে গেছে করোনার ছোবলে। করোনা বুঝিয়ে দিচ্ছে পৃথিবীতে ক্ষমতাধর কেউই না। আমিত্ব ভোলার সময় হয়েছে।

প্রিয় মানুষগুলোকে হারিয়ে অনেকে হয়েছেন বাকরুদ্ধ। বছরটির পুরো বিশ্বের জন্যই যেন অশনি সংকেতের বার্তা বহন করেছিলো। গত একশ বছরের ইতিহাসে পুরো বিশ্ব লকডাউনের মত পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে।

চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা ভাইরাসের অস্তিত্বের সন্ধান মিলে। খুব দ্রুতই এই ভাইরাস পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। মহামারি রূপ নেয়া ভাইরাসটি রাতারাতিই আতংকের জন্ম দেয়। কয়েক লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটে।

বিশ্ব অর্থনীতি আরেকবার শতবর্ষে এসে হোঁচট খায় মারাত্বক ভাবে। বহু মানুষের চাকরি হারানোর মত ঘটনা আমাদের দেখতে হয়েছে। বেশ কিছু অমানবিকতার চিত্র ফুটে উঠেছে। মানুষে মানুষে তৈরি হয়েছে সামাজিক দূরত্ব। যদিও দূরত্বটি দৈহিক হওয়ায়ই বাঞ্চনীয়।

বেড়েছে নারী নির্যাতন সহ সামাজিক অপরাধ। সংসার ভাঙার চিত্রও ফুটে উঠেছে অনেক জায়গায়। কাজ হারিয়ে বহুলোক হয়েছেন নিঃস্ব।

সাফল্যের চেয়ে ব্যর্থতাই ছিল বেশী। এ যেন বিশে বিষফোঁড়ার মতই। ২০২০ এবং ২০২১ সালকে মুজিব বর্ষ ঘোষণা করা হয়েছে। তারই প্রেক্ষিতে পুরো বাংলাদেশেই ছিল উৎসবের আমেজ। কেউ কেউ তো ২০১৯ সাল থেকেই উৎসবের আমেজ শুরু করে দিয়েছিলো। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি,জাতির সূর্যসন্তান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ পালনে জাতি যখন মুখিয়ে ছিল ঠিক তখনি এক ক্ষুদ্র অনুজীব ভাইরাস সব গুলিয়ে দিয়ে গেলো নিমিশেই।

১৭ই মার্চ অনাড়ম্বর যে অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল তা আর হয়ে উঠলো না। এভাবেই দেখতে দেখতে চলে এলো ২০২১।

স্বাধীনতার ৫০ বছরে পদার্পণ করলো জাতি। আর তাইতো ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে বদ্ধপরিকর জাতি। কিন্তু করোনার থাবা তো সেখানেও।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালো রাতে পাক হানাদার বাহীনি যে নির্মম হত্যাযজ্ঞ পরিচালিত করেছিলো তা ছিল ইতিহাসের সবচেয়ে নেক্কারজনক ঘটনা। ঘুমন্ত-নিরস্ত্র বাঙালির উপর বর্বরাচিত হামলার ঘটনায় সেদিন বাঙালির সিংহ পুরুষ, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ২৬ শে মার্চ প্রথম প্রহরে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। যদিও অলিখিত স্বাধীনতার ঘোষণা ৭ ই মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এবাবের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম ঘোষণার মাধ্যমেই হয়ে গিয়েছিলো।

বছর জুড়ে বন্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানঃ

করোনার সবচেয়ে বড় প্রভাবটি পড়ে শিক্ষাখাতে। স্বাস্থ্য সচেতনতার কথা চিন্তা করে বন্ধ করে দেওয়া হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ১৭ ই মার্চের আগের দিন বন্ধের ঘোষণা আসে। করোনার প্রকোপ বাড়ার কারণে প্রতিষ্ঠান আর খোলার সুযোগ হয় নাই। তবে ফাঁকে দিয়ে এসএসসির রেজাল্ট প্রকাশ করা,উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পূন্ন হয়। বিপদে পড়েন এইসএসসির শিক্ষার্থীরা। উপায় না পেয়ে তাঁদের দেয়া হয় অটোপাশ। এরপর অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়।

ঘটেছে বাল্যবিবাহের ঘটনাও। স্কুল বন্ধ থাকার কারণে অনেক পরিবারই সুযোগে কম বয়সে বিয়ে দিয়ে দিয়েছেন কন্যাকে। অনেকটা এমন যে বিয়ে দিলেই বাঁচি।

করোনায় বেড়েছে অমানবিকতাঃ করোনায় ২০২০ সালে জন্ম দিয়েছে কঠিন এক অমানবিকতার। এমনও দেখতে হয়েছে যে লাশ দাফন করতে অনিহা পোষণ করেছে কাছের মানষরা। যাদের জন্য জীবনের বেশীরভাগ সময়, জীবন -যৌবন উজাড় করে দিয়েছে তারাই হেঁটেছে উলটো পথে। প্রিয় মানুষগুলো ছেড়ে চলে গেছে। যাকে খুব বেশী আপন ভেবেছেন সে ও বেইমানি করতে কুণ্ঠাবোধ করেনি। এমনও গল্প শুনেছি স্বামীর চাকরি চলে যাওয়ায় স্ত্রী তাকে তালাক দিয়েছে।

বছরের শেষ দিকে এসেছে করোনার টিকাঃ

নানা জল্পনা-কল্পনার পর এসেছে করোনার টিকা। তবে সেটা কতটা কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে সেটা স্রষ্টাই ভাল জানেন। এর ফাঁকে বাংলাদেশের গ্লোব বায়োটেক এক গবেষণা করে জানান দেয়া শুরু করেন যে তারা ও আনতে পারে করোনার ভ্যাকসিন। এছাড়া করোনাকে কেন্দ্র করে কত ধরনের যে কৌতুহলের সৃষ্টি হয়েছে। ফাইজার নিয়ে এসেছে বাজারে করোনার টিকা। কিন্তু সেটি বাংলাদেশে এখনো আসেনি। হয়তো শিগগিরই আসছে করোনার টিকা।

হারিয়েছি যাদেরঃ

আলী যাকের অভিনেতা, ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এন্ডুকিশোর, কীংবদন্তী সংগীত শিল্পী। অসংখ্য জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন। হারিয়েছি আমরা তাকেও ২০২০ এ এসে। তিনিও ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। সংগীত পরিচালক আলাউদ্দীন আলী, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়,ইরফান খান,সুশান্ত সিং রাজপুত,আবদুল কাদেরের মত বিখ্যাত ব্যক্তিদের হারিয়েছি ২০২০ এ এসে।

লেখকঃ রিফাত কান্তি সেন, সাংবাদিক

 

শেয়ার