শোক, হতাশা আর প্রাপ্তির বছর ২০২০ বিদায়

৩১ ডিসেম্বর, ২০২০ ৪:৫৫ অপরাহ্ণ
শোক, হতাশা আর প্রাপ্তির বছর ২০২০ বিদায়

২০২০ সাল আজ বিদায় হয়ে যাচ্ছে। বছরের শেষ দিন আমরা পুরো বছর নিয়ে একটা হিসাবে বসি। কী পেলাম আর কী পেতে পারতাম এসব হিসাব যেমন থাকে। তেমনি থাকে না পাওয়ার বেদনাও। এই হিসেব-নিকেশ সবসময় আনন্দময় হয় বিষয়টি তেমন নয়। তবে সাধারণত সেটা খুব একটা বিষাদময় হয় না। কিন্তু ২০২০ সেদিক থেকে পুরোই ব্যতিক্রম।

এ বছর শুধু আমাদের শোকগ্রস্ত করেছে বিষয়টি তেমন নয়। আমাদের রীতিমত হতাশায় ডুবিয়ে দিয়েছে। এর কারন যে করোনা তা বোধ হয় না বললেও সবাই বুঝে গিয়েছেন। এ বছর অনাকাঙ্খিত এই ভাইরাস ইতোমধ্যে আমাদের স্বজনদের কেড়ে নিয়েছে। আমাদের প্রতিবেশিদের কেড়ে নিয়েছে। কেড়ে নিয়েছে দেশের খ্যাতিমান অনেক মানুষ। যাদের মাধ্যমে এ দেশের আরও অনেক কিছু পাওয়ার ছিল। এ সমাজের আরও অনেক কিছু পাওয়ার ছিল। দেশের উন্নয়নে আর তাঁদের ভুমিকা আরও বেশি প্রয়োজন ছিল। এ তালিকায় যেমন রাজনীতিবিদ আছেন, তেমনি আছেন চিকিৎসক, সাংবাদিক বা বুদ্ধিজীবী।

শুধু আমাদের দেশ বরেণ্য ব্যক্তিদের হারিয়েছে বিষয়টি তেমন নয়, সারাবিশ্বই শোক সাগরে ভেসেছে করোনার কারনে। বরং সে তুলনায় বাংলাদেশের ক্ষতি অনেক কম। কিন্তু একটি মৃত্যুও কী কারও কাছে আনন্দের হতে পারে? মৃত ব্যক্তির পরিবার শুধু জানে, তাদের ক্ষতি কতটা, শোক কতটা, অভাব আর হাহাকার কতটা? সেই ব্যক্তি যদি গুরুত্বপূর্ণ কেউ হন, তাহলে এ ক্ষতি বইতে হয় পুরো জাতিকে। তাই এক কথায় ২০২০ আমাদের জন্য শোক আর হতাশার বছর।

তবে এত এত ক্ষতির মধ্যেও কিছু প্রাপ্তি আমাদের শক্তি আর সাহস যুগিয়েছে। সামনে পথ চলার অনুপ্রেরণা দিয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হল আমাদের অর্থনীতির গতি প্রকৃতি। কে না জানে দেশকে সচল রাখতে হলে অর্থনীতি সচল থাকতে হয়। আমাদের প্রবাসীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে রেমিটেন্স পাঠিয়েছে। করোনার কারনে আমাদের আমদানি ব্যয় কমে গিয়েছিল। ফলে একটি দেশের অর্থনীতির স্থীতিশীলতা বজার রাখার জন্য তিন মাসের আমদানি ব্যয়ের সমপরিমান বৈদেশিক মুদ্রা থাকার বাধ্যবাধকতা থাকলেও আমাদের আছে প্রায় ১১ মাসের বৈদেশিক আমদানি ব্যয়ের সমপরিমান বৈদেশিক মুদ্রা। করোনার মধ্যে অর্থনীতির এরকম একটা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে নতুন বছর শুরু করতে পারার মধ্যে আলাদা একটা তৃপ্তি আছে।

এই তৃপ্তি যদি সরকারের হয়, তাহলে দেশের সাধারণ মানুষকে সুখ অনুভব করার উপলক্ষ দিয়েছে ২০২০। বছরের শেষ দিকে এসে পদ্মা সেতুর স্প্যান বসানোর পরিসমাপ্তি নতুন করে আমাদের নিজেদের নিয়ে ভাবতে শিখিয়েছে। পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্ব ব্যাংকের সাথে নানান নাটকীয়তার পর সরকার যখন নিজেদের অর্থায়নে সেতু নির্মানের ঘোষণা দেয় তখন সবাই ভেবেছিল এ প্রকল্প কোন দিন আলোর মুখ দেখবে না। খোদ প্রধান প্রধান রাজনীতিবিদগণও এ প্রকল্প নিয়ে সঙ্কা প্রকাশ করেছেন। এবং সেতু কোনদিন আলোর মুখ দেখবে না বলে জানিয়েছিলেন।

কিন্তু সব শঙ্কা আর অনিশ্চয়তাকে দূরে ঠেলে দিয়ে পদ্মা সেতু ঠিকই মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে। এতে শুধু পদ্মা সেতুই মাথা তুলেই দাঁড়ায়নি। মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে বাঙালি জাতি। নিজেদের স্বত্তার আর সক্ষমতার একটা ভিন্ন রূপ দেখতে পেয়েছে পুরো বিশ্ব। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের বীরত্ব হয়ত সবাই ভুলে গিয়েছিল। এখন সময় পাল্টেছে। অস্ত্র নিয়ে যুদ্ধ হয়তো প্রযুক্তির বিশ্বে এসে মানুষ দেখতে পাবে না। এখন ‍যুদ্ধ হবে অর্থনীতির। কৌশলে যে যত বেশি এগিয়ে থাকবে সেই জিতবে এই অদৃশ্য যুদ্ধে। চালাক বিশ্বব্যাংককে বুদ্ধিমান বাংলাদেশ যে হারিয়ে দিয়েছে এটা পদ্মা সেতুতেই প্রমানীত। বাংলাদেশ এখন আর দয়া পাওয়ার অপেক্ষায় চেয়ে থাকে না। সমীক্ষা বলছে ২০৩৫ সালে বাংলাদেশ ২৪তম সেরা অর্থনীতির দেশ হবে। সেটা যে বাংলাদেশ পারবে সেটা সরকার দেখিয়ে দিয়েছে। ২০২১ সালের বাংলাদেশ আরও বেশি ক্ষমতাশালী হবে এই প্রত্যাশা এখন আমাদের সবার।

শেয়ার