সাম্প্রদায়িকতা মুক্ত ও সহনশীল দেশ চাই

০৭ ডিসেম্বর, ২০২০ ১:০০ অপরাহ্ণ
সাম্প্রদায়িকতা মুক্ত ও সহনশীল দেশ চাই

বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে দ্রুত ধাবমান একটি দেশ। করোনার হানায় যখন সারাবিশ্বের বাঘা বাঘা অর্থনৈতিক শক্তির দেশগুলো নাকাল, ঠিক তখনই বাংলাদেশে বইছে এর উল্টো হাওয়া। সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী প্রতিদিনই বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ছে। আন্তর্জাতিক মানদন্ড অনুযায়ী একটি দেশের তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর জন্য সমপরিমান বৈদেশিক মুদ্রা থাকতে হয়। বাংলাদেশের বর্তমান রিজার্ভ দিয়ে কমপক্ষে ১১ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব। এটা দেশের জন্য অত্যন্ত সুখবর।

শুধু তাই নয়, সমহারে পাল্লা দিয়ে দেশের উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে। এই উন্নয়নে যেমন মেঘা প্রকল্প আছে তেমনি আছে অনেক মাঝারি ও ক্ষুদ্র প্রকল্পও। দেশের স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশের সুবিধা নিয়ে সরকার প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করছে তা বলাই বাহুল্য।

কিন্তু বর্তমানে কিছু ইস্যু নিয়ে হঠাৎ-ই রাজনেতিক ময়দান ‘উত্তপ্ত’ হয়ে উঠেছে। পদ্মা সেতুর মুখে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মান এই ইস্যুর মূলে সেটা আমাদের সবারই জানা। এর প্রতিবাদ জানিয়ে কওমী আলেমরা ইতোমধ্যে সভা-সমাবেশ করেছেন ও করছেন। আমরা যদি একটু পেছনে ফিরে তাকাই তাহলে দেখতে পাই ২০১৮ সালের শোকরানা মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘কওমি জননী’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছিল। ৪ নভেম্বরের শোকরানা মাহফিলে কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড গওহরডাঙ্গার চেয়ারম্যান ও গোপালগঞ্জের গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসার মহাপরিচালক মুফতি রুহুল আমীন এ উপাধি দেন।

মুফতি রুহুল আমীন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা আপনি স্বীকৃতি দিয়েছেন, সবকিছু উপেক্ষা করে। অনেক বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছেন, তার জবাব দিয়েছেন। ১৪ লাখ শিক্ষার্থীর জননীর ভূমিকা আপনি (শেখ হাসিনা) পালন করেছেন। আজকে কওমি মহাসমুদ্রে আমি ঘোষণা করতে চাই, আপনি কওমি জননী। আজ থেকে আপনাকে এ উপাধি দিলাম। আপনার মাতৃত্বের ভূমিকা না থাকলে দেশবিরোধী, সাহাবাদের শত্রু, জামাত-মওদুদীবাদীরা এ দেশে (স্বীকৃতি) তা হতে দিতো না।’ প্রসঙ্গত উল্লেখ্য সে মাহফিলে হাটহাজারি মাদ্রাসার মহাপরিচালক মাওলানা আহমদ শফী উপস্থিত ছিলেন। তিনি সেসময় প্রধানমন্ত্রীকে ক্রেস্ট তুলে দেন এবং দোয়া করেন।

প্রশ্ন উঠেছে তাহলে হঠাৎ কেন কওমী আলেমরা জননীর কাছে তাদের প্রস্তাব নিয়ে না গিয়ে রাস্তায় আন্দোলনে নেমেছেন। তাছাড়া অনেক ধরনের ভাস্কর্য থাকলেও শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে আন্দোলন করায় তাতে রাজনৈতিক সংযোগ খোঁজা অমূলক কিছু নয়।

প্রধানমন্ত্রীকে যারা চিনেন তারা জানেন তিনি আলোচনায় বিশ্বাসী। তাছাড়া মুসলমান হিসেবে নিয়মিত নামাজ ও কোরআন পড়েন এবং নিয়মিত ধর্মীয় রীতিনীতি পালন করতে দেখা যায়। সুতরাং প্রস্তাব নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গেলে এর একটা সুন্দর সুরাহা হতো বলেই বিশ্বাস করেন অভিজ্ঞ মহল।

একটি দেশে সব ধর্মের মানুষ বসবাস করেন। কারও হয়ত আধিক্য আছে, কেউ বা সংখ্যায় কম। কিন্তু একটি সরকার যখন দেশ চালান তখন সবার কথা মাথায় রেখেই দেশ চালাতে হয়। যেকোনও বিষয়ে সবার পর্যবেক্ষণ এক রকম হয় না। ভিন্নমত থাকবে এটা যেমন স্বাভাবিক তেমনি মতের ভিন্নতায় ক্ষুব্দ হলে আন্দোলন সংগ্রাম চলবে এটাও স্বাভাবিক। কিন্তু যত যাই হোক দেশের মানুষ সাম্প্রদায়িকতা চায় না। হানাহানিও চায় না। মনে রাখতে হবে পাশের বৃহৎ দেশ ভারত বা পাকিস্তান থেকে অনেক সূচকে বাংলাদেশ এগিয়ে। আমাদের এগিয়ে যাওয়া অব্যাহত রাখতে সবমহলের একযোগে কাজ করতে হবে। কোনো বিশেষ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করতে গিয়ে আমাদের অগ্রগতি যেনো কোনোভাবে বাধাগ্রস্ত না হয়।

শেয়ার