সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধে প্রয়োজন আইনের কঠোর বাস্তবায়ন

০৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২:১৬ অপরাহ্ণ
সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধে প্রয়োজন আইনের কঠোর বাস্তবায়ন

করোনায় আমাদের প্রতিদিন আতঙ্কিত করে। কারন এটা প্রাণঘাতি। কিন্তু বাংলাদেশের বাস্তবতায় করোনার ছেয়েও আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে সড়ক দুর্ঘটনা। শুধুমাত্র গতকাল শুক্রবারের দিনটির দিকে খেয়াল করলেই এর বাস্তব প্রমান পাওয়া যাবে। গতকাল সারাদেশে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ২৪ জন মানুষ। একই দিন সড়কে প্রাণ গেছে ২৪ জন মানুষের। এই পরিসংখ্যান থেকেই বুঝা যায় কতটা ভয়বহতা বয়ে চলেছে আমদের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থায়।

গতকাল ছিল শুক্রবার। বন্ধের দিন হওয়ায় সাধারণত কর্মজীবি মানুষজন নিজের গ্রামের বাড়ি, বেড়াতে যাওয়া নানান ব্যক্তিগত কাজের সিডিউল রাখেন। কিন্তু বন্ধের দিনে সড়কে জীবন প্রদিপ নিভে যাওয়া এসব মানুষ নিয়ে যেন আমাদের কোনও ভাবনা নেই। যে পরিমান চিন্তা-ভাবনা বা পরিকল্পনা করোনাভাইরাস নিয়ে আছে তার কিঞ্চিৎ পরিমানও সড়ক নিয়ে নেই। ফলে যা হবার তাই হচ্ছে। প্রতিদিনের সড়ক দুর্ঘটনা যেন একটা নৈমিত্তিক ব্যাপার। জবাবদিহীতা নেই বলে দুর্ঘটনা রোধ করাও বেশ কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

সড়ক দুর্ঘটনায় সবাই মারা যাচ্ছেন বিষয়টি তেমন নয়। যিনি মারা যাচ্ছেন তার পরিবার বা তার উপর নির্ভরশীল ব্যক্তিবর্গ সাগরে ভাসেন। একসময় শোক ভুলে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন। কিন্তু যারা বা যেসব মানুষ পঙ্গুত্ব বরণ করেন তাদের সাগরে আর কূলের দেখা পান না।

সাধারণত চালকদের বেপোয়ারা গাড়ি চালনা দুর্ঘটনার প্রধান কারণ হলেও সড়কের ত্রুটি কোনো অংশেই কম দায়ি নয়। অপরিকল্পিত বাক, স্পিড ব্রেকার, সড়কের উপর বাজার, উচ্চগতির গাড়ির সঙ্গে ধীর গতির গাড়ির একসঙ্গে চলতে দেয়া এসব কারনও এখন প্রধান হয়ে উঠেছে।

সড়কে গাড়ির উচ্চগতির মূল কারণ হলো চালকদের সাথে মালিকদের চুক্তিতে গাড়ি চালানো। তাই তারা দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছে নতুন ভাড়া নিতে চান। এছাড়া কোনও দুর্ঘটনা ঘটলে চালকরা গাড়ি রাস্তায় ফেলে চলে যান। তখন মালিকরা জরিমানা বা মামলা-মোকদ্দমার মুখোমুখি হন। কিন্তু চালকদের কোনও জরিমানা করা হয় না। ক্ষেত্র বিশেষে মামলা বা আটক হলেও চালকদের শক্তিশালী সংগঠন তাদের পাশে দাঁড়ায়। ফলে দু-একটি ব্যতিক্রম ছাড়া চালকদের সাজা পেতে আমরা খুব একটা দেখি না। ফল যা হবার তাই হচ্ছে।

এছাড়া কোনও সড়কে দুর্ঘটনা ঘটলে তা তদন্ত করে যদি সড়কে নির্মানে ক্রুটি থাকলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, প্রকৌশলী এবং ঠিকাদারকে আইনের আওতায় জরুরি। তাহলেই সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হবে। অন্যথায় আমাদের শোকগাথা আমাদের অনন্তকাল ধরে পোড়াতেই থাকবে।

শেয়ার